ছেলে ধরা গুজবে তাহিরপুর হাওরপাড়ে আতঙ্ক

0
22
ছেলে ধরা গুজবে তাহিরপুর হাওরপাড়ে আতঙ্ক

আহাম্মদ কবির: বিগত কয়েকদিন ধরে সুনামগঞ্জ তাহিরপুর হাওরপাড়ে ছেলে ধরা গুজব নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে।হাওরে রাত্রেবেলা কোন ইঞ্জিল চালিত যানবাহনের শব্দ শুনলেই আতঙ্ক হয়ে যায় স্থানীয় জনসাধারণ, সবচেয়ে বেশী আতঙ্কে রয়েছে কোমলমতি শিশুরা। জানাযায় বিগত কয়েকদিন ধরেই এ আতঙ্ক শুরু হয়েছে হাওরাঞ্চলে।এলাকাবাসীর তথ্যমতে জানাযায়,হাওরাঞ্চলের প্রতিটা গ্রাম পাড়া-মহল্লায় স্থানীয় যুবকরা সংঘবদ্ধ হয়ে রাত জেগে পাহাড়া দিচ্ছে । রাত্রে গ্রামের আশেপাশে ইঞ্জিনচালিত কোন যানবাহনের শব্দ শুনলেই তারা একসাথে খবরদার খবরদার বলে চিৎকার করে। এবং উপজেলার হাওরাঞ্চলের জনসাধারণের সতর্কতার জন্য এই এলাকার একাধিক হাটবাজার এমনকি গ্রামে গ্রামে মাইকিং করা হয়ে বলে জানাযায়। হাওরপাড়ের কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরা ভীত সন্ত্রন্ত হয়ে স্কুলে যাচ্ছে অভিভাবকের সাথেই। অপরিচিত লোক দেখলেই শিশু থেকে বৃদ্ধরা চমকে উঠছেন। ছেলে ধরা চক্র এলাকায় ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং শিশুদের অপহরণ করে নিয়ে হত্যা করে মাথা কেটে নিয়ে যাচ্ছে এমন গুজব ছড়িয়ে যাওয়ার ফলে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন গ্রামাঞ্চলের শিশু ও অভিভাবকরা।স্থানীয় এলাকাবাসীর তথ্যমতে জানাযায় গতকাল শনিবার রাত্রে তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তে কলাগাও গ্রামে মতি মিয়া নামের এক প্রতিবন্ধী শিশুকে গলাকাটা চেষ্টার অভিযোগে জয়নাল মিয়া নামের এক যুবককে স্থানীরা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। যার ফলে অপরিচিত লোক দেখলেই মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে। অপরিচিত কেউ ভিক্ষা চাইতে গেলে ভিক্ষা না দিয়ে ফিরিয়ে দিচ্ছেন গৃহস্তরা। কোথাও না কোথাও শিশু ধরে নিয়ে গলা কাটছে এমন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে মানুষের মাঝে। কয়েকদিন ধরে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে ‘ছেলে ধরা’র খবর আসছে। তবে ঘটনা অনুসন্ধান করতে গেলে তার সুনির্দিষ্ট কোনো সত্যতা মিলছে না।

তবে এ ব্যাপারে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক পিযুস পুরকায়স্থ টিটু কাছে জানতে চাইলে উনি বলেন, ছেলেধরা বা গলাকাটা নিয়ে যে সংবাদটি বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়েছে, তা একটি গুজব।এ ব্যাপারে সবাই সচেতন হতে হবে, যদি অপরিচিত কাউকে এলাকায় অযথা ঘোরাফেরা করতে দেখা যায়, প্রথমেই তার পরিচয় জানার চেষ্টা করতে হবে, যদি সন্দেহ হয় পুলিশে সোপর্দ করতে হবে। যেহেতু বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্ন কিছু গঠনার সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে,

এ ব্যাপারে তাহিরপুর থানা ইন-চার্জ আতিকুর রহমান বলেন আমরা উর্ধতন কর্মকর্তাদের নির্দেশক্রমে ছেলেধরা বা গলাকাটা গুজব নিয়ে, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় জনমানুষের সচেতনতার জন্য মাইকিং করা হচ্ছে, গত শনিবার উপজেলার সীমান্তবর্তী কলাগাও গ্রামে এক শিশুকে গলাকাটার চেষ্টার অভিযোগে স্থানীয়রা জয়নাল নামের একজন ব্যাক্তি কে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে, তার কছ থেকে কিছু জানা যাচ্ছে, এ প্রশ্নের জবাবে উনি বলেন এ ব্যাপারে তদন্ত্র হচ্ছে, তদন্ত্র শেষে জানা যাবে।