ভূঞাপুরে স্বর্ণ ব্যবসায়ী সুদেব হত্যা ও ডাকাতি মামলায় আরো একজন গ্রেপ্তার

0
108
ভূঞাপুরে স্বর্ণ ব্যবসায়ী সুদেব হত্যা ও ডাকাতি মামলায় আরো একজন গ্রেপ্তার

আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসী এলাকার স্বর্ণ ব্যবসায়ী হত্যা ও ডাকাতি মামলায় মো. হাশেম রেজা (২৫) নামের আরো এক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) উত্তর। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) গোবিন্দাসী বাজার থেকে ঐ আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি একই এলাকার মনিরুল ইসলাম গুটুর ছেলে। হাশেম হত্যার কথা স্বীকার করে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। এ মামলায় ২০১৭ সালে আরো দুই আসামী হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিলে, আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করেন।
পুলিশ ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ০৪ অক্টোবর ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী সুদেব কর্মকারকে নিজ ঘরে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ভাই ইন্দ্র কর্মকার বাদী হয়ে ভূঞাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-০১/১০/১৪। থানা পুলিশ মামলার রহস্য উদঘাটন করতে না পেরে চূড়ান্ত রিপোর্ট সত্য নং-১৭, ২৯/৯/২০১৫ সালের মামলাটি দাখিল করলে আদালত ঘটনার রহস্য উদঘাটের জন্য জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে মামলার তদন্তভার দেন।
টাঙ্গাইল প্রাক্তন পুলিশ সুপার বর্তমান যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মাহবুব আলম পিপিএম বার, টাঙ্গাইল জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ অশোক কুমার সিংহ পিপিএম বার দ্বয়ের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ দিক নির্দেশনায় এই মামলার মূল রহস্য উদঘাটন করেন গোয়েন্দা পুলিশের প্রাক্তন উপ-পরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান টিটু। তিনি কয়েকটি ক্লু ধরে তদন্ত শুরু করলে। ২০১৭ সালের ০৪ অক্টোবর ঘটনায় জড়িত আসামী রবি কর্মকার (৩৫) এবং একই বছরের ২৯ জানুয়ারি আসামী আব্দুল আলীম (৩০) কে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করলে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের প্রাক্তন উপ-পরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান টিটু বর্তমানে ডিএমপি গোয়েন্দা পুলিশে বদলিজনিত কারণে মামলাটির দায়িত্ব পায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) দক্ষিণ’র এসআই মো. ওবাইদুর রহমান। তিনি গত মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) গোবিন্দাসী বাজার থেকে হাশেম রেজা নামের মামলার ৪র্থ আসামীকে গ্রেপ্তার করেন।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে পুলিশ সপ্তাহে যে সকল কৃতিত্ব মূলক কাজের জন্য বর্নিত কর্মকর্তাগণ পিপিএম পদক প্রাপ্ত হন তার মধ্যে স্বর্ণ ব্যবসায়ী সুদেব কর্মকার হত্যার রহস্য উদ্ঘাটনের বিষয়টি অন্যতম।