শিশুর মাথা কাটা পদ্মা সেতুর সাথে কোন সম্পর্ক নেই: এসপি জয়দেব চৌধুরী

0
33
শিশুর মাথা কাটা পদ্মা সেতুর সাথে কোন সম্পর্ক নেই: এসপি জয়দেব চৌধুরী

হুমায়ুন কবির: নেত্রকোনায় শিশুর মাথা বহনকারী যুবককে গণ পিটুনিতে হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের সহ বিষিয়টি নিয়ে আতংকিত না হতে জেলা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী।
এসময় তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর সাথে মাথা কাটার বিষয়টি সম্পূর্ণ গুজব।

এসময় পুলিশ সুপার আরো বলেন, ধারণা করা হচ্ছে মনের পুরনো কোন জেদ বা বিকৃত মানসিকতা থেকেই সজিবের সাথে নির্মম ও বর্বরোচিত এ ঘটনা ঘটেছে। শিশু সজিবের গলা কাটার বিষয়টি শুধুই একটি হত্যাকান্ড। এ বিষয়ে তদন্ত অব্যাহত আছে।
এর সাথে ছেলে ধরা বা পদ্মা সেতু গুজবের কোন সম্পর্ক নেই। এদিকে ঘটনার পরপরই নেত্রকোনা জেলা পুলিশ এবং ময়মনসিংহ রেঞ্জের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

তিনি আরো বলেন,
অপরিচিতি হলেই সন্দেহ করে কাউকে মারপিট করা যাবে না। এ ধরণের ভুল সিদ্ধান্তে নিজেও অপরাধী হয়ে যেতে পারেন। এতে যে কাউকে আইনের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হতে পারে। এলাকা,পাড়া বা মহল্লায় অপরিচিত ব্যক্তিকে নিয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হলে আগে তার সাথে কথা বলুন এবং তার পরিচয় সম্পর্কে শতভাগ নিশ্চিত হন। তারপর কোথাও কোন সমস্যা মনে হলে পুলিশকে সংবাদ দিন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেলে ধরা নিয়ে ভীত বা আতঙ্কিত হওয়ার কোন কারণ নেই। রবিন ছিল ঐ শিশুরই প্রতিবেশী এবং এলাকার চিহ্নিত মাদকাসক্ত যুবক। যদি গণপিটুনি দিয়ে রবিনকে না মেরে ফেলা হত তবে প্রকৃত ঘটনা পুলিশের মাধ্যমে অথবা সরাসরি তার মুখ থেকে দেশবাসী দ্রুত সময়েই শুনতে পারত। আইন কারো হাতে তুলে নেয়ার সুযোগ নেই।

এ ঘটনায় থানায় দুটি মামলা হয়েছে। একটি মামলা সজিবের বাবা বাদী হয়ে গণ পিটুনিতে নিহত রবিনকে আসামী করে করেছেন। অপর মামলাটি শিশু হত্যাকারী রবিনকে গন পিটুনিতে হত্যায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামা আসামী করে মামলাটি করেছে।
বিষয়টি পুলিশ ক্ষতিয়ে দেখছে
দুটো লাশেরই ময়না তদন্ত করা হচ্ছে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে জেলার প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।