৫১০ টাকার পরিবর্তে ২২০০ টাকা আদায়: বাউফলে আনসার ভিডিপি কর্মকতার ঘুষ বাণিজ্যে

0
74
৫১০ টাকার পরিবর্তে ২২০০ টাকা আদায়: বাউফলে আনসার ভিডিপি কর্মকতার ঘুষ বাণিজ্যে

অতুল পাল: বাউফলে আনসার ভিডিপি সদস্যদের সম্মানীভাতা দেয়ার সময় দশ টাকার রেভিনিউ স্ট্যাম্প এবং ৫০০ টাকার কল্যাণ তহবিলের নামে নেয়া হচ্ছে ২ হাজার ২০০ টাকা। উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা ইসমেত আরা এই টাকা নিচ্ছেন বলে সাংবাদিকদের জানানো হয়। আজ বৃহষ্পতিবার ভাতা নিতে আসা তারই অধিনস্তরা এমনই অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিন কয়েকজন সাংবাদিক ছদ্মবেশে উপজেলা পরিষদ এলাকায় আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা ইসমেত আরার কার্যালয়ের সামনে গিয়ে দেখা যায়, ইসমেত আরা একের পর এক আনসার কোম্পানি কমান্ডার, আনসার প্লাটুন কমান্ডার, ইউনিয়ন আনসার প্লাটুন কমান্ডার, ইউনিয়ন সহকারি আনসার প্লাটুন কমান্ডারদের মাসিক সম্মানী ভাতা গ্রহণের জন্য ডাকছেন এবং মাস্টার রোলে স্বাক্ষর নিয়ে তাদের প্রাপ্ত মাসিক সম্মানি ভাতা থেকে ২ হাজার ২০০ করে টাকা রেখে দিচ্ছেন। এসময় সাংবাদিকরা তার কার্যালয়ের ভিতরে ঢুকে পরিচয় দিয়ে উপস্থিত ইউনিয়ন আনসার প্লাটুন কমান্ডার ও ইউনিয়ন সহকারি আনসার প্লাটুন কমান্ডারদের কাছে তাদের প্যাপ্য সম্মানি ভাতার পরিমাণ জানতে চাওয়া হলে নাজিরপুর ইউনিয়ন আনসার প্লাটুন কমান্ডার মোঃ ওবায়দুল ইসালাম জানান,তার প্রাপ্য সম্মানীর টাকা হচ্ছে ৭হাজার ২০০ টাকা কিন্তু তাকে দেয়া হয়েছে ৫ হাজার টাকা। একই কথা জানান, দাশপাড়া ইউনিয়ন আনসার প্লাটুন কমান্ডার গোপাল কৃষ্ণ সাহা এবং বগা ইউনিয়ন আনসার প্লাটুন কমান্ডার আমিনুল ইসলাম। এবিষয়ে আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা ইসমেত আরাকে প্রশ্ন করা হলে, তিনি বলেন,“অফিসিয়াল কিছু খরচাপাতি আছে এ জন্য ওই টাকা রাখা হয়েছে”। কিসের খরচ জানতে চাইলে তিনি বলেন, “রেভিনিউ স্ট্যাম্পের খরচ এরপর কল্যাণ তহবিল ইত্যাদি”। রেভিনিউ স্টাম্প এবং কল্যাণ তহবিলের জন্য কত টাকা কেটে রাখা হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রেভিনিউ ষ্ট্যাম্প ১০ টাকা এবং কল্যাণ তহবিলের অনুকুলে ৫০০ টাকা জমা হয়। তাহলে ১ হাজার ৪৯০ টাকা কেন বেশি নিচ্ছেন? এমন প্রশ্নের তিনি কোন সদোত্তর দিতে পারেননি। অক্টোবর ২০১৮ থেকে মার্চ ২০১৯ পর্যন্ত মোট ৬ মাসের সম্মানী ভাতা প্রদানের মাস্টার রোলে দেখা গেছে, প্রত্যেক উপজেলা আনসার কোম্পানি কমান্ডারের জন্য বরাদ্দকৃত সম্মানী ভাতার পরিমান লেখা রয়েছে ৯ হাজার টাকা, উপজেলা আনসার সহকারি কোম্পানি কমান্ডারের জন্য ৭ হাজার ৮০০ টাকা, ইউনিয়ন আনসার প্লাটুন কমান্ডারের জন্য ৭হাজার ২০০ টাকা এবং ইউনিয়ন সহকারি আনসার প্লাটুন কমান্ডারের জন্য ৬ হাজার টাকা লেখা রয়েছে। ওই মাস্টার রোলে

বিভিন্ন পদমর্যাদার মোট ৩৩ জন আনসার কমান্ডারের নাম এবং বরাদ্দকৃত টাকার পরিমাণ উল্লেখ করা রয়েছে। এ ব্যাপারে বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিজুস চন্দ্র দে বলেন, আপনাদের মাধ্যমে ঘটনাটি জানলাম। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। পটুয়াখালী জেলার আনসার ভিডিপি কমান্ডেন্ট আবু সাইদ বলেন, এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।