স্বপ্নপূরণের আনন্দে মুখরিত বেনাপোল এক্সপ্রেসের যাত্রীবর্গ

0
25
বেনাপোল এক্সপ্রেসের

শাহারিয়ার হুসাইন: বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বেনাপোল বাসীর স্বপ্ন পূরন করে এ ট্রেনের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করলেন। এ ট্রেনটির নামকরণ ও প্রধানমন্ত্রী নিজে করেছেন।

বুধবার বেলা সোয়া একটায় বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে।এ ট্রেনে বগি থাকবে ১২টি।

রেল মন্ত্রণালয়ের সুত্রে জানা গেছে ,নতুন ট্রেনে ব্রড গেজ কোচসমূহ এডিবির অর্থায়নে ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য মিটার গেজ ও ব্রড গেজ প্যাসেঞ্জার ক্যারেজ সংগ্রহ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ইন্দোনেশিয়া থেকে সংগৃহীত হয়েছে।

দ্রুতগতির এ ট্রেন পরিচালনার ফলে বেনাপোল-ঢাকা-বেনাপোল রুটে চলাচলকারী যাত্রীসাধারণের নিরাপদ আসা-যাওয়া সহজতর, দ্রুততর ও আরামদায়ক হবে।সংগৃহীত কোচসমূহের অন্যতম নতুন বৈশিষ্ট্য হলো বায়ো-টয়লেট সংযোজন। ট্রেনটিতে প্রতিবন্ধী যাত্রীদের হুইল চেয়ারসহ চলাচলের সুবিধার্থে থাকছে প্রশস্ত দরজা (মেইন ও টয়লেট দরজা) এবং নির্ধারিত আসনের সুবিধা। যাত্রীসাধারণের জন্য আধুনিক ও মানসম্মত চেয়ার, বার্থ, স্টেয়ার, পার্সেল র‌্যাক, টিভি মনিটর হ্যাংগার, ওয়াই-ফাই রাউটার হ্যাংগার, মোবাইল চার্জারের ব্যবস্থা রয়েছে।

‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি ১২টি কোচ দ্বারা চলবে। ট্রেনটিতে এসি সিট, এসি চেয়ার ও শোভন চেয়ার শ্রেণির সর্বমোট ৮৯৬টি (৭৯৫ নম্বর ট্রেনের ক্ষেত্রে) এবং এসি বার্থ, এসি চেয়ার ও শোভন চেয়ার শ্রেণির সর্বমোট ৮৭১টি (৭৯৬ নম্বর ট্রেনের ক্ষেত্রে) আসনের ব্যবস্থা থাকবে।

বেনাপোল ট্রেনের সাপ্তাহিক বন্ধের দিন (৭৯৫) বুধবার ও (৭৯৬) বৃহস্পতিবার। ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ছাড়বে দুপুর ১টায়, ঢাকায় পৌঁছবে রাত ৯টায় এবং ঢাকা থেকে ছাড়বে রাত ১২টা ৪০ মিনিটে, বেনাপোল পৌঁছবে সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে।

ট্রেনটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশন থেকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংযুক্ত হতে যশোর বেনাপোলে উপস্থিত ছিলেন যশোর-১ শার্শা আসনের সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন,যশোর-২ আসনের সাংসদ নাসির উদ্দিন,বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক শামসুজ্জামান ও বাংলাদেশ রেলওয়ের ক্যারেজ সংগ্রহ প্রকল্পের পরিচালক প্রকৌশলী হারুন-অর-রশিদ, যশোর জেলার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক হুসাইন মোহাম্মদ শওকত,বেনাপোল কাষ্টমস্ কমিশনার বেলাল হোসাইন চৌধুরীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জোনের সিগন্যাল এন্ড টেলিকমিউনিকেশন চীফ ইঞ্জিনিয়ার ওয়াসিম কুমার তালুকদার, যশোর জেলা পুলিশ সুপার মইনূল হক, শার্শা উপজেলার নির্বাহী অফিসার পূলক কুমার মণ্ডল,উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মঞ্জু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, বেনাপোল সিএন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েশন সভাপতি মফিজুর রহমান স্বজন,যশোর জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল,শার্শা থানার ওসি এম মসিউর রহমান, উপজেলার সকল ইউনিয়ন চেয়ারম্যানগন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা সহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলোক্টনিক মিডিয়ার সংবাদ কর্মীরা।