ছেলেকে বাজারে পাঠিয়ে পুত্রবধূকে ধর্ষণ করলো শ্বশুর!, অতপর..

0
68
ছেলেকে বাজারে পাঠিয়ে পুত্রবধূকে ধর্ষণ করলো শ্বশুর!, অতপর..

কাগজ প্রতিনিধি: দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলায় পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় ওই পুত্রবধূ নিজের শ্বশুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে চিরিরবন্দর থানায় মামলা করেন। আজ সোমবার শ্বশুরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তাঁকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।
গ্রেপ্তার করা ব্যক্তি হলেন মো. শফিকুল ইসলাম ছফু (৫০)।
মামলার এজাহারে পুত্রবধূ অভিযোগ করেন, তিন মাস আগে শফিকুলের ছেলের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। বিয়ের পরে থেকেই শ্বশুর অশোভনভাবে তাঁর দিকে তাকাতেন এবং বিভিন্ন অজুহাতে কাছে আসার চেষ্টা করতেন। শ্বশুর বলে শুরুতে তিনি কিছু মনে করেননি। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে শ্বশুর তাঁর স্বামীকে বাড়ির কাছের বাজারে কাঁঠাল এবং দেবর শরিফুলকে ওষুধ আনতে পাঠান। ওই সময় তিনি ঘর ঝাড়ু দিয়ে আবর্জনা বাইরে ফেলার জন্য যাচ্ছিলেন। হঠাৎ পেছন থেকে শ্বশুর তাঁকে জাপটে ধরে মুখ চেপে শয়ন কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করেন। ঘটনাটি কাউকে জানালে তাঁকে খুন করার হুমকি দেন। তবে তিনি ঘর থেকে চিৎকার করে বাইরে আসেন। তাঁর চিৎকার শুনে দুই প্রতিবেশী নারী এগিয়ে এলে শ্বশুর দৌড়ে পালান। স্বামী বাড়িতে আসার পর তাঁকে ঘটনা খুলে বলেন। পরে ঘটনাটি উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লায়লা বানুকে মুঠোফোনে জানান।
চিরিরবন্দরের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লায়লা বানু বলেন, ‘ঘটনাটি শোনার পর ওই নারীকে আইনের আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। এরপর নিজ দায়িত্ববোধ থেকে বিভিন্ন জায়গায় শফিকুলের সন্ধানে ফোন দিই। গতকাল রোববার দুপুর ১২টার সময় খোঁজ পাই শফিকুল ভুষিরবন্দর বাজারে আছেন। পরে সেখানকার স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে নিজে উপস্থিত হয়ে শফিকুলকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করি।’
চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হারেসুল ইসলাম বলেন, এক নারী তাঁর শ্বশুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা করেছেন। শ্বশুর শফিকুল ইসলামকে আজ দিনাজপুর জেলা আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাঁকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ওই নারীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাঁকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।