রাজাপুরে বোনকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ভাইয়ের উপর হামলা

0
28
রাজাপুরে বোনকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ভাইয়ের উপর হামলা

কাগজ প্রতিনিধি: ঝালকাঠির রাজাপুরে ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী মোসাঃ রজিনা আক্তারকে ইভটিজিং করায় তার ভাই মোঃ রাকিব মোল্লা প্রতিবাদ করলে সে নিজেই হামলার শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার রাত ৯ টায় উপজেলার গালুয়া পাকাপুল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় রবিবার দুপুরে রজিনা আক্তার তার বাবাকে সাথে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ হাওলাদারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ভুক্তভোগী রজিনা উপজেলার নিজ গালুয়া গ্রামের মোঃ সেলিম মোল্লার মেয়ে ও মাতৃকল্যান মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী। সরেজমিনে জানাগেছে, রজিনা স্কুলে আসা যাওয়ার পথে পাকাপুল এলাকার মুদি দোকানদার ইউসুব এর উৎসাহে একই গ্রামের শহিদের পুত্র বখাটে মামুন ও তার সহযোগী বাবুলের পুত্র নাঈম ইভটিজিং করে আসছিল। ইভটিজিং এর কারনে রজিনার পরিবার তার স্কুলে আসা বন্ধ করে দেয়। এ ব্যাপারে স্কুলের সহকারি প্রধান শিক্ষক জানতে পেরে রজিনার বাড়ি গিয়ে স্কুলে পাঠানোর জন্য তার পরিবারকে পরামর্শ দেয় এবং স্কুলে আসতে সহযোগীতা করে। রজিনা আবার ঐ শিক্ষকের সহযোগীতায় স্কুলে যেতে শুরু করলে গত ১২ জুলাই স্কুলে যাওয়ার পথে অভিযুক্ত বখাটেরা তাকে উত্যক্ত করলে তার ভাই রাকিব এর প্রতিবাদ করে। আর এই প্রতিবাদের জেড় ধরে শনিবার রাতে মামুন ও নাঈম ইউসুবের সহযোগীতায় তার দোকানের সামনে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। আহত অবস্থায় রাকিবকে রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে স্থানীয়রা। বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক মোঃ নুরুল ইসলাম জানান, বখাটেদের কারনে রজিনার স্কুলে আসা বন্ধ হয়ে গেলে তার লেখাপড়ার ক্ষতি হবে ভেবে আমি তাকে স্কুলে আসতে সহায়তা করি। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোঃ নাঈম হোসেন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি ইভটিজিং এর অভিযোগ অস্বীকার করে জানায়, মারামরির ঘটনা ঘটেলেও মেডিকেল যাওয়ার মত কোন ঘটনা ঘটেনি। এ ব্যাপারে রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ হাওলাদার জানান, রজিনার কাছ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়ে রাজাপুর থানা অফিসার ইনচার্জকে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি।