পটুয়াখালীতে ১৩ বছরের মাদ্রাসা ছাত্রকে শিক্ষক কতৃক অমানুষিক নির্যাতন

0
661
পটুয়াখালীতে ১৩ বছরের মাদ্রাসা ছাত্রকে শিক্ষক কতৃক অমানুষিক নির্যাতন

কাজী মামুন: সহরের হেতালীয়া বাধঘাট এলাকার কাঁচাবাজারের পূর্ব পার্শ্বে আকনবাড়ী হাফেজী মাদ্রাসার ছাত্র সুমন চৌকিদার (১৩) কে ঐ মাদ্রাসার শিক্ষক আহসান উল্লাহ। জানাগেছে সকাল ৮ ঘটিকায় টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে সুমনকে মারধর করে,ঐ প্রতিষ্ঠানের একাধিক ছাত্র জানায় হুজুরের টাকা চুরি হয়েছে মর্মে সুমনকে দায়ীকরে একপর্যায়ে জোতা চালান দিয়ে ওকে চোর সাব্যস্ত করে। এরপরে সুমনকে হাত পা বেধে মাটিতে ফেলে পিটিয়ে তাকে গুরুতর আহত করে ফেলে রাখে। একপর্যায়ে বিষয়টি জানা জানি হোলে এলাকার কিছুলোক মিমাংশা করার চেস্টা করে ব্যার্থ হয়। পরে সুমনকে পটুয়াখালী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে, সুমন জানায় তার উপর অমানুষিক নির্যাতন চালায় শিক্ষক নামের ঐ পশু। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ আহসানকে গ্রেফতার করে। এদিকে এ ঘটনায় সহরে চানচল্ল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই মনেকরেন মাদ্রাসা বাংলাদেশের একটি নিরাপদ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্তেও এখানেই বেশী পরিমান শিক্ষার্থী শিক্ষক কতৃক নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। কোরআন শিক্ষার নিরাপদ আশ্রয় কোথায়। বিষয়টি যথাযথ কতৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা সহ কঠিন শাস্তির দাবী জানিয়েছেন। এদিকে ঐ শিক্ষক ইতিমধ্যে অনেক কেই এরকম শাস্তির নামে অমানবিক নির্যাতন চালিয়েছে বলে একাধিক ব্যাক্তি এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন। এ আহসান উল্লাহ ঐ মসজিদের ইমাম ছিলো। অনেক মুসুল্লিরা ওর কারনে ঐ মসজিদে নামাজ পড়া ছেরে অন্য মসজিদে নামাজ আদায় করেন। এলাকাবাসী বলেন ওর এত অপকর্মের খুটির জোর কোথায়?।