চুনারুঘাটে রুই-মুরগী নিয়ে ভিক্ষুকের বাড়িতে ওসি!

0
58
চুনারুঘাটে রুই-মুরগী নিয়ে ভিক্ষুকের বাড়িতে ওসি

কাগজ প্রতিনিধি: আছকির মিয়া। একজন প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক। বয়স প্রায় ৫০ বছর হবে। হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলাবাসীর পরিচিত মানুষ আছকির মিয়া। বিশেষ করে পুলিশের পোশাক পরেই ভিক্ষা করেন তিনি। দীর্ঘদিন ধরে ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবনযাপন করছেন। বর্তমানে তিনি উপজেলার সদরের চুরতা গ্রামে বসবাস করেন।

আছকির মিয়া অসুস্থতার কারণে বেশ কয়েকদিন ধরে বাড়িতে রয়েছেন। উপজেলা সদরে আগের মতো খুবএকটা দেখা যায় না তাকে। এ বিষয়টি নজরে পড়ে চুনারুঘাট থানার ওসি কেএম আজমিরুজ্জামানের।

পরে তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন আছকির মিয়া ১৫ দিন ধরে অসুস্থ। প্রতিবন্দ্বী আছকির মিয়াকে না দেখে ওসি আজমিরুজ্জামান রোববার দুপুরে তার পরিবারের জন্য কিছু খাদ্যসামগ্রী নিয়ে বাড়িতে হাজির হন।

এ সময় ৩টি দেশী মুরগী, ১টি রুই মাছ, ৫০ কেজি চাল এবং নগদ ১ হাজার টাকা আছকির ও তার পরিবারের হাতে তুলে দেন ওসি।

এ সময় আবেগাপ্লুত হয়ে ওসি আজমিরুজ্জামানকে আছকির মিয়া কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘স্যার! কোনো দিন কোনো ওসি সাব আমার বাড়িতে এভাবে আসেননি।’

আছকির মিয়া খাদ্যসামগ্রী পেয়ে খুব খুশি। তিনি জানান, এখন ভালোভাবে খেয়ে রোজা থাকতে পারবেন তিনি।

ওসি আজমিরুজ্জামান বলেন, কয়েকদিন ধরে আছকির মিয়াকে না দেখে মনের ভেতরে প্রশ্ন জাগল, লোকটা হঠাৎ করে গেল কোথায়? পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি সে ১৫ দিন ধরে অসুস্থ অবস্থায় বাড়িতেই থাকে। এছাড়াও সে প্রায় সময়ই থানায় আমার কাছে আসত।

ওসি বলেন, মাঝেমধ্যে দেখি নিজ উদ্যোগে রাস্তায় ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করেন। তার ভেতর দায়িত্ববোধ দেখে অবাক হই। যে নিজে ভিক্ষা করে সে আবার নিজ উদ্যোগে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করে। এটাই তার সম্পর্কে একটা চিন্তা মাথায় রাখতে সহায়তা করে আমাকে। তাই ভাবলাম লোকটা অসুস্থতার কারণে বের হতে পারছে না, কীভাবে চলে তার সংসার। এ বিষয়টি উপলদ্ধি করে পবিত্র রমজান মাসে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে যাতে রোজা পালন করতে পারে সে জন্য খাদ্যসামগ্রী দিয়ে কিছু সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা সবাই আমাদের চারপাশের ২-১জন অসহায় লোকের সহযোগিতা করি, তাহলে দেখবেন সমাজের সবাই স্বাচ্ছন্দ্যবোধে চলছে। আসুন সবাই স্বাধ্যানুযায়ী আশপাশের অসহায় দরিদ্রদের পাশে দাঁড়াই।