কেশবপুরে পিকনিকের বাস উল্টে পুকুরে, ১ শিশু নিহত ও আহত ৪৩

0
110

জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরের শ্রীরামপুরে পিকনিকের বাস উল্টে মাছের ঘেরে পড়ে সাব্বির (৫) নামে এক শিশু নিহত ও আহত প্রায় ৪৩ জন। সোমবার সকালের দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কেশবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শাহীন।
কেশবপুর উপজেলার ত্রিমোহিনী ইউনিয়নের মেম্বর আজিজুর রহমান জানান, আলমসাধুকে সাইড দিতে গিয়ে পিকনিকের বাস পুকুরে পড়ে ৪ বছরের শিশু নিহত হয়েছে। এ সময় বাসে থাকা প্রায় ৪৩ জন নারী-পুরুষ আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ১৪ জনকে কেশবপুর হাসপাতালে ও বাকীদের খুলনাসহ বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্র ভর্তি করা হয়েছে। এলাকাবাসি ও হাসপাতাল সূত্রে জানাগেছে, বাগেরহাট, মোংলা ও সুন্দরবনে পিকনিকে যাওয়ার উদ্দেশ্য সোমবার ভোরে সাতক্ষীরার বাওখোলা, আগরদাঁড়ি, কাশেমপুর ও মীরডাঙ্গা এলাকার শিশুসহ নারী-পুরুষ (সাতক্ষীরা-জ-১১-০০৯২) নং বাসযোগে রওনা হয়। বাসটি কলারোয়া হয়ে কেশবপুরের ভিতর দিয়ে যাওয়ার পথে সরসকাটি-মংগলকোট সড়কের কেশবপুর উপজেলার ভালুকঘর(বালির মোড়) স্থানে একটি আলমসাধু (ইঞ্জিনচালিত বড় ভ্যান) সাইড দিতে গিয়ে উল্টে পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। এসময় সাব্বির(৫) নামের এক শিশু নিহত হয়। সে সাতক্ষীরা সদরের বাওখোলা গ্রামের কামরুল ইসলামের ছেলে। এ সময় বাসে থাকা ৪৩ জন নারী-পুরুষ ও শিশু আহত হয়। স্থানীয় লোকজন আহত ১৪জনকে উদ্ধার করে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করে। আহতরা হলো আনিকা (১৫ মাস), ফারহানা (১৬), রুহী (১৪ মাস), সোহাদা (২৫), জুলেখা (১৫), শিরিনা (১৮), শামিউল (১০), মোস্তাকিন (১২), ঝুমুর (১৮), সোহাগ (২৬), শহর ভানু (৪০), মারিয়া (১৭), সাজু (১৬), ও রাজিয়া বেগম (৫০)। এদের মধ্যে আনিকা, রুহী ও মোস্তাকিনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকীদের বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্রে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার পরপরই কেশবপুর থানার পুলিশ ও মনিরামপুর ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এলাকাবাসির পাশাপাশি উদ্ধার কাজ চালায়।