টাঙ্গাইলে প্রেমের ফাদেঁ ফেলে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

0
87

কাগজ প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলে প্রেমের ফাদেঁ ফেলে ৮ম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। মুমূর্ষু অবস্থায় ওই স্কুলছাত্রীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।তবে এ ঘটনায় ধর্ষিতা মা বাদী হয়ে মডেল থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষক রিফাতকে প্রধান আসামি করে মামলা করলেও এখন গ্রেপ্তার হয়নি।
ধর্ষিতা ছাত্রী ও তার পরিবার জানায়, টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার হামিদপুর এলাকার লিটন মিয়ার ছেলে রিফাত এর বসবাস শহরের কাগমারায় মামার বাড়িতে। এ সুযোগে রিফাতের যাতায়াত চলে ওই স্কুলছাত্রীর বসবাসরত বাসচান্দা এলাকায়। এক সময় ছাত্রীর মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করাসহ উত্যক্ত করতে থাকে রিফাত।
উত্যক্তের এক পর্যায়ে গত তিন মাস যাবৎ তাদের মধ্যে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। ওই প্রেমের সূত্র ধরেই গত ২৫ ফেব্রয়ারি সোমবার দুপুরে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে ছাত্রীকে রিফাত কৌশলে তার টাঙ্গাইল পৌর এলাকার কাগমারার মামার বাড়িতে নিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় স্কুলছাত্রী রক্তাক্ত ও জ্ঞান হারিয়ে ফেললে ধর্ষক রিফাত সেখান থেকে পালিয়ে যায়। স্কুল ছুটির পরও ওই ছাত্রী বাড়িতে না আসায় খোঁজ করে ধর্ষিতা ছাত্রীর সন্ধান পায় তার মা।
পরে রক্তাক্ত অবস্থায় মেয়েকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন তিনি। এ ঘটনায় ধর্ষিতা ছাত্রীর মা বাদী হয়ে রিফাতকে প্রধান আসামী করাসহ ২ জনের নামে টাঙ্গাইল সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
তবে ধর্ষণের এ ঘটনায় মামলা হলেও এখনও আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় হতাশ তারা।
দ্রুত ধর্ষককে গ্রেফতার করাসহ এ ঘটনার দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তারা।
টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা.নারায়ন চন্দ্র সাহা জানান, হাসপাতালে ভর্তি ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষা করানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে।বর্তমানে মেয়েটি আশংকামুক্ত বলেও জানান তিনি।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল মডেল থানার ওসি সায়েদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় ধর্ষিতা ছাত্রীর মা বাদী হয়ে নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় জড়িত আসামিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।